Wednesday, 08 23rd

Last updateThu, 03 Aug 2017 10am

বসুরহাট পৌরসভা নোয়াখালী জেলার অর্ন্তগত কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বড়রাজাপুর, রামদী, করালিয়া, চরপার্বতী, চরহাজারী ও চর কাঁকড়া মৌজাসহ মোট ৬টি মৌজার ৬.৫০ বর্গ কিঃমিঃ এলাকা নিয়ে। ২৩ এপ্রিল ১৯৯০ সালে বসুরহাট পৌরসভা ৯টি ওয়ার্ড সমন্বয়ে “গ” শ্রেনীর পৌরসভা হিসাবে গঠিত হয় এবং ২৬-০৫-২০১১ তারিখে বসুরহাট পৌরসভা ‘ক’ শ্রেণীর পৌরসভা হিসাবে উন্নীত হয়।

বসুরহাট পৌরসভা রাজধানী শহর ঢাকা থেকে ২০০ কিঃ মিঃ দক্ষিন পূর্বে এবং সমুদ্রবন্দর চট্রগ্রাম থেকে ১৩০ কিঃ মিঃ উত্তর পশ্চিমে, উপজেলা সদরে অবস্থিত  বসুরহাট পৌরসভা ২২˚-৩৯’ হতে ২২˚-৫৫’ উত্তর-অক্ষাংশে এবং ৯১˚-১১’হতে ৯১˚-২৭’পূর্ব-দ্রাঘিমাংশ ভৌগোলিক সীমা রেখার মধ্যে অবস্থিত।  বসুরহাট পৌর এলাকার উত্তরে ১নং সিরাজপুর ইউনিয়ন, পূর্বে ২নং চরপার্বতী ও ৩ নং চরহাজারী, দক্ষিনে ৭ নং চরকাঁকড়া ইউনিয়ন ও পশ্চিমে ১নং সিরাজপুর ও ৭নং চরকাঁকড়া ইউনিয়ন অবস্থিত। বসুরহাট পৌর এলাকার  মধ্য দিয়ে অতিক্রম করেছে নোয়াখালী-ফেনী আঞ্চলিক মহাসড়ক। আঞ্চলিক মহাসড়কের মাধ্যমে বসুরহাট পৌরসভা বাংলাদেশের প্রায় সকল জেলা উপজেলার সাথে সংযুক্ত আছে।

আদমশুমারী ২০১১ অনুযায়ী বসুরহাট পৌরসভার মোট জনসংখ্যা ২৯,৮৭৭ জন, তন্মধ্যে পুরুষ ১৪,৮০০ জন ও মহিলা ১৫,০৭৭ জন। ২০০১ সনের আদমশুমারী অনুযায়ী এ পৌরসভার মোট জনসংখ্যা ছিল ২১,০৯৬ জন, তন্মধ্যে পুরুষ ছিল ১০,৯৭৬ জন ও মহিলা ছিল ১০,১২০ জন। বসুরহাট পৌরসভার জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ৪.১৬%, যা জাতীয় নগর জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারের (২.৮৫%, বিশ্বব্যাংক, ২০১০) চেয়ে অনেক বেশী।  বসুরহাট পৌরসভার জনসংখ্যার এই দ্রুত বৃদ্ধির  প্রধান কারণ হচ্ছে পৌরসভা সংলগ্ন বিভিন্ন গ্রামাঞ্চল ও দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে কর্মসংস্থানের উদ্দেশ্যে পৌরসভা এলাকায় বসতি স্থাপন।

সৃষ্টিকালীন সময়ে পৌরসভায় ৭জন কর্মকতা/কর্মচারী কর্মরত ছিলেন। বর্তমানে সচিব, নির্বাহী প্রকৌশলীও প্রশাসনিক কর্মকর্তা সহ সর্বমোট কর্মকর্তা কর্মচারীর সংখ্যা ৪৪ জন। পৌরসভার ১ম প্রশাসক মরহুম আমিরুল ইসলাম খোকন এবং ১ম নির্বাচিত চেয়ারম্যান মরহুম ডাঃ মোঃ ‌আবদুল হালিম এমবিবিএস। ২য় পরিষদে নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন জনাব আবদুল কাদের মির্জা, ৩য় পরিষদে নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন জনাব কামাল উদ্দিন চৌধুরী, ৪র্থ  এবং ৫ম  পরিষদে জনাব আবদুল কাদের মির্জা পুনঃরায় মেয়র নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। ৪র্থ পরিষদে দায়িত্ব নেওয়ার পর মেয়র জনাব আবদুল কাদের মির্জা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এর প্রতিনিধি হিসাবে অস্ট্রেলিয়া,নিউজিল্যান্ডও শ্রীলঙ্কা ভ্রমন করেন।

পৌরসভা সৃষ্টির পর উল্লেখযোগ্য কাজ সমূহের মধ্যে

১। বসুরহাট পৌরসভার জন্য নিজস্ব ভবন এবং মার্কেট নির্মান ।

২। পৌরসভার বাস ট্রার্মিনাল নির্মানের জন্য ১ একর  ৬০ শতাংশ ক্রয় পূর্বক টার্মিনালে রুপান্তর ।

৩। পৌরসভার প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য ১৫ শতাংশ জমি ক্রয় পূর্বক তাতে বিদ্যালয় নির্মান ।

৪। পৌরসভার পক্ষ থেকে সরকারী খাস জমিতে কয়েকটি মার্কেট নির্মান ।

৫। পৌরসভার ডাম্পিং সাইটের জন্য ২৭ শতাংশ এবং চরকাঁকড়া মৌজায় ১০২ শতাংশ জমি ক্রয় ।

৬। মার্কেট নির্মানের জন্য জিরো পয়েন্টে ২৮ শতাংশ জমি ক্রয় ।

 ৭। পৌরসভায় স্বপ্নপুরী মার্কেট নির্মান।

যোগাযোগ বিষয়ক তথ্য

  • Add:
  • Tel:
You are here: Home আমাদের সম্পর্কে